সোমবার ২৫ মার্চ ২০১৯   |  ১১ চৈত্র ১৪২৫   |   ১৭ রজব, ১৪৪০
Untitled Document

৩০ ভাগ শিক্ষার্থী উপবৃত্তির আওতায় আসছে

প্রকাশঃ রবিবার, ০৩ মার্চ ২০১৯    ১৭:৩৬
ডেস্ক নিউজ

সমাজের সুবিধাবঞ্চিত, অতি দরিদ্র, বিদ্যালয়বিমুখ ও প্রতিবন্ধী ছেলে-মেয়েদের মাঝে প্রচলিত শিক্ষাব্যবস্থাকে আরও আকর্ষণীয় করতে এবং সবার জন্য সমতাভিত্তিক হিসেবে এটি গড়ে তোলার লক্ষ্যে ‘সমন্বিত উপবৃত্তি নীতিমালা’ প্রণয়ন করতে যাচ্ছে সরকার। এ নীতিমালার আওতায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে ‘দারিদ্র্যের’ ভিত্তিতে ৩০ শতাংশ শিক্ষার্থীকে উপবৃত্তি প্রদান করা হবে।

এ প্রকল্পে সরকারের বছরে খরচ হবে দুই হাজার ২৬৭ কোটি টাকা। ইতোমধ্যে এ সংক্রান্ত একটি খসড়া নিতীমালা চূড়ান্ত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এটি অনুমোদনের জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের উপসচিব নাসরীন মুক্তি স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘অনুমোদিত উপবৃত্তির হার বাস্তবায়নের জন্য পরিপত্র/প্রজ্ঞাপন জারি করা প্রয়োজন। কিন্তু পরিপত্র জারির পূর্বে অর্থ বিভাগের সম্মতি গ্রহণ আবশ্যক।’ অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সম্মতি প্রদানের আগে বিষয়টি যাচাই-বাছাই করে দেখছে অর্থ বিভাগ।

অর্থ সচিবকে লেখা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে বলা হয়, ‘বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় বিদ্যামান উপবৃত্তির হার এবং শিক্ষার্থী নির্বাচনে পার্থক্য রয়েছে। সেকেন্ডারি এডুকেশন কোয়ালিটি অ্যান্ড অ্যাকসেস এনহ্যান্সমেন্ট প্রজেক্ট (সেকায়েপ) অনুসৃত পিএমটি পদ্ধতি এবং মাধ্যমিক শিক্ষা উপবৃত্তি, দ্বিতীয় পর্যায় প্রকল্প এসইএসপি এবং উচ্চ মাধ্যমিক উপবৃত্তি প্রকল্প এইচএসএসপি অনুসৃত ভিন্ন ভিন্ন পদ্ধতির মাধ্যমে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের তত্ত্বাবধানে শিক্ষার্থী নির্বাচন করে উপবৃত্তি প্রদান করা হয়।

এসব প্রকল্পে উপবৃত্তির হার সমন্বিত করে ‘সমন্বিত উপবৃত্তির হার’ এবং ‘শিক্ষার্থী নির্বাচন’র বিষয় গত ১৬ জানুয়ারি মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় চূড়ান্ত করা হয়। সভায় দারিদ্র্যের ভিত্তিতে মোট শিক্ষার্থীর ৩০ শতাংশকে উপবৃত্তির আওতাভুক্তের প্রস্তাব গৃহীত হয়।

সভায় সেকেন্ডারি এডুকেশন সেক্টর ইমপ্রুভমেন্ট প্রোগ্রামের (সেসিপপ) যুগ্ম প্রোগ্রাম পরিচালক মো. আবু ছাইদ শেখ বলেন, ৩০ শতাংশ শিক্ষার্থীকে উপবৃত্তি বিতরণ করা হলে বছরে সরকারের খরচ হবে দুই হাজার ২৬৭ কোটি টাকা। তিনি বলেন, ছেলে বা মেয়ে শিক্ষার্থী নির্বিশেষে নির্ধারিত মানদণ্ড অনুসরণ করে দারিদ্র্যের ভিত্তিতে সুবিধাভোগী শিক্ষার্থী নির্বাচন করতে হবে।
সভায় সমন্বিত উপবৃত্তির শ্রেণিভিত্তিক হার নির্ধারণ করা হয়। ।

সূত্র জানায়, ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত বর্তমানে ভিন্ন চারটি প্রকল্পের অধীনে উপবৃত্তির সুবিধা পাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। ভিন্ন ভিন্ন প্রকল্পের কারণে উপবৃত্তি বণ্টনে চলে আসছে জটিলতা। অপরদিকে উপকারভোগীদের নির্বাচন নিয়ে এক প্রকল্পের মানদণ্ডের সঙ্গে অন্যটির মিল না থাকায় তা নিয়ে সমস্যায় পড়তে হয় সংশ্লিষ্টদের। এমনকি এলাকাভেদে একই শ্রেণির শিক্ষার্থী পেয়ে থাকেন ভিন্ন হারে উপবৃত্তি। তাই উপকারভোগী নির্বাচনে অনিয়ম, আলাদা হারে অর্থ প্রদানসহ নানা বিশৃঙ্খলার অবসান ঘটিয়ে চারটির পরিবর্তে একটি প্রকল্পের মাধ্যমে সব শ্রেণিতে শিক্ষার্থীদের সমতার ভিত্তিতে উপবৃত্তি দেয়ার জন্য সমন্বিত উপবৃত্তি নীতিমাল প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়।

জিবিডি/আরআইটি

SRM Institutes of Science and Technology Ad Space India Education Fair 2018, Dhaka
আর্কাইভ
March 2019
SunMonTueWedThuFriSat
1

2

3

4

5

6

7

8

9

10

11

12

13

14

15

16

17

18

19

20

21

22

23

24

25

26

27

28

29

30

31

AIMS Institutes

প্রকাশক

বিপ্লব চন্দ্র চক্রবর্তী

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক

রবিউল ইসলাম তুষার

আমাদের সাথে থাকুন
© Copyright 2017. GEE BD. Designed and Developed by GEE IT